ইতিহাস পুনরাবৃত্তির মিশন

খেলাধুলা ডেস্ক
মে ৩১, ২০১৭
 পরাজয় বাংলাদেশের জন্য ব্যর্থতাই হবে। পরাজয় বাংলাদেশের জন্য ব্যর্থতাই হবে।

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি শুরু হয়েই গেছে প্রায়, আর একজন বাংলাদেশি হিসেবে আমি গর্বিত যে টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচেই আমরা স্বাগতিক ইংল্যান্ডের মুখোমুখি হতে যাচ্ছি। ম্যানচেস্টার বোমা হামলার কথা যথাযথ ভাবগাম্ভীর্যের সাথেই স্মরণ করা হবে, কিন্তু তারপরেও এটি একটি দুর্দান্ত টুর্নামেন্ট হতে যাচ্ছে।

দুই দলের জন্যই গত দুই সপ্তাহ ধরে বেশ ব্যস্ত সময় কেটেছে। বাংলাদেশ আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলে এসেছে, অপরদিকে ইংল্যান্ড প্রস্তুতি সেরেছে সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে ২-১ এর সিরিজ জয় দিয়ে।

প্রথম ম্যাচ হওয়ায় নিশ্চিতভাবেই বাংলাদেশের জন্য এটি একটি বড় ম্যাচ। গ্রুপের অপর দুই প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড, সেই বিবেচনায় বাংলাদেশের ভালো একটা শুরুর কোন বিকল্প নেই। ভালো একটা শুরু ছাড়া সেমিফাইনালের জন্য কোয়ালিফাই করা খুবই মুশকিল হয়ে যাবে।

বাংলাদেশ যদি নিজেদের সেরাটা দিতে পারে, তাতে শুধু সেমিফাইনালে উঠার আশাই উজ্জ্বল হবে না, বরং তাদের আত্মবিশ্বাস ও মনোবলও অনেকটা বৃদ্ধি পাবে।

এরই মধ্যে প্রথম ম্যাচের টিকেট সব বিক্রি হয়ে গেছে। দুই দলই প্রচুর দর্শক সমর্থন পাবে মাঠে। যদিও ইংল্যান্ডের হোম ম্যাচ, তারপরেও প্রচুর বাংলাদেশি সমর্থক ওভালে উপস্থিত থাকবেন নিজেদের দলকে সমর্থন যোগানোর জন্য। আমার মনে হয় না বাংলাদেশি খেলোয়াড়দের মনে হবে তারা নিজেদের দেশ থেকে দূরে কোথাও খেলছে।

তারপরেও, নিশ্চিতভাবেই বাংলাদেশের জন্য কাজটা সহজ হবে না, কারণ ইংল্যান্ড সাম্প্রতিককালে দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলছে। ২০১৫ বিশ্বকাপের পর থেকেই ইংল্যান্ড এক বদলে যাওয়া দল, এই দলটি নির্ভীক ও বিনোদনদায়ী ক্রিকেট খেলছে। ইংল্যান্ডে এসে ইংল্যান্ডে হারানো সবসময়ই কঠিন, কিন্তু চ্যাম্পিয়ন হতে চাইলে আপনাকে সেরাদের বিপক্ষে জিতেই হতে হবে।

আমি নিশ্চিত বাংলাদেশ দল পুরো টুর্নামেন্ট জুড়েই নিজেদের সেরাটা দেয়ার জন্য মুখিয়ে থাকবে।

এ গ্রপে বাংলাদেশই একমাত্র উপমহাদেশীয় দল, কিন্তু অতীতে ভারত-পাকিস্তান দেখিয়েছে যে উপমহাদেশীয় দলও ৫০ ওভারের ক্রিকেটে ইংলিশ কন্ডিশনে সাফল্য পেতে পারে। বাংলাদেশ সেসব থেকে অনুপ্রেরণা নিতে পারে, নিতে পারে ত্রিদেশীয় সিরিজের শেষ ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জয় থেকেও।

এতদিনে এই কন্ডিশনের সাথে খাপ খাইয়ে নেয়ার কথা বাংলাদেশ দলের। যদিও নিউজিল্যান্ড দলে তাদের অনেক মূল খেলোয়াড়ই ছিল না, তারপরেও কোন টুর্নামেন্টের আগে জয় সবসময়ই আত্মবিশ্বাস বর্ধক হিসেবে কাজ করে।

আমি কেবল আশা করি লন্ডনে একটি রৌদ্রজ্জ্বল দিন পাওয়া যাবে। পিচ ব্যাটিং সহায়কই হবে, কিন্তু আকাশে মেঘ থাকলে ইংল্যান্ডে ব্যাট করাটা উপমহাদেশীয় দলগুলোর জন্য সবসময়ই কঠিন। বাংলাদেশ তাই আবহাওয়াকে নিজেদের অনুকূলেই চাইবে।

বৈশ্বিক টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের অন্যতম স্মরণীয় জয় ২০১৫ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষেই। আবারো কি আরেকটি ইংল্যান্ড বধ হবে? আমি মনে করি হতেই পারে। ইংল্যান্ড এখন অনেক ভালো দল, কিন্তু আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি ঘটানো সম্ভব।

গত দুই বছর ধরে বাংলাদেশ প্রমাণ করেছে এখন তারা যেকোনো দলকে হারানোর সামর্থ্য রাখে। আমি বলব পরাজয় তাদের জন্য একপ্রকার ব্যর্থতাই হবে, কারণ দুই বছর ধরে তারা তাদের যোগ্যতা ও ধারাবাহিকতা দিয়ে প্রত্যাশা তৈরি করেছে।

শক্তিমত্তার দিক থেকে দল দুটিকে আমি কাছাকাছিই রাখব। জেসন রয় ও অ্যালেক্স হেলস যথেষ্ট অভিজ্ঞ এবিং দুজনেই ভালো ক্রিকেট খেলছে, কিন্তু তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকারকেও আমি খুব একটা পিছিয়ে রাখব না। তামিম এখন অনেক পরিণত, আর সৌম্য রয়ের মত ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলে। সৌম্য উইকেটে থাকতে পারলে বাংলাদেশের জন্য দারুণ হবে, কারণ সে দ্রুত রান তোলে।

জো রুট, ইয়ন মরগান ও জস বাটলারকে নিয়ে গড়া ইংল্যান্ড মিডল অর্ডার বেশ সলিড, কিন্তু মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ ও সাকিব আল হাসানকে নিয়ে গড়া বাংলাদেশ মিডল অর্ডারও তাদের জবাব দেয়ার জন্য মুখিয়ে থাকবে।

পেস বোলিংয়ের দিকে তাকাতে গেলে ইংল্যান্ড তুলনামূলক ভালো পেস অ্যাটাকের দিক থেকে। কেউ গতিশীল, আবার কেউ বা বল সুইং করাতে পারদর্শী। এছাড়া বেন স্টোকসের উপস্থিতিও তাদের বাড়তি সুবিধা দেবে।

স্টোকসের মত জেনুইন অলরাউন্ডার ব্যাট কিংবা বলে একা হাতেই ম্যাচ জিতিয়ে আনতে পারে। সে খুবই বিধ্বংসী এবং চোখের পলকে ম্যাচ হাতের মুঠো থেকে বের করে নিয়ে যেতে পারে।

ইংল্যান্ড ফেবারিট হিসেবেই শুরু করবে, কিন্তু ক্রিকেট সবসময় বিশেষজ্ঞদের ভুল প্রমাণিত করতে ভালবাসে। নিশ্চিতভাবেই আমরা একটা উপভোগ্য ম্যাচ দেখতে যাচ্ছি, এবং আশা করছি দিনশেষে জয়ের হাসিটা বাংলাদেশের মুখেই থাকবে।

-------------

- কলামটি History can repeat itself শিরোনামে প্রকাশ করেছে আইসিসির অফিশিয়াল ওয়েবসাইট আইসিসি-ক্রিকেট.কম। অনুবাদ করেছেন সঞ্জয় পার্থ।

Category : অনুবাদ
Share on your Facebook
Share this post