কাঁটা থেকে ফুলের মালা

আরিফুল ইসলাম রনি
নভেম্বর ২৪, ২০১৬
ফাফ দু প্লেসি ফাফ দু প্লেসি

Sometimes there are stones thrown at you and you convert them into milestones. It's a great feeling

ব্রায়ান লারাকে ছাড়িয়ে টেস্টের রান চূড়ায় ওঠার পর বলেছিলেন শচিন টেন্ডুলকার। সেই 'গ্রেট ফিলিং' আসলে কেমন, নিশ্চয়ই উপভোগ করছেন ফাফ দু প্লেসি!

রান চূড়ায় তিনি ওঠেননি, স্পর্শ করেননি বড় কোনো মাইলফলকও। তবে যেটা করেছেন, প্রতিকূলতাগুলোকে প্রশংসায় রূপ দেওয়া, কাঁটাগুলিকে ফুল করে নেওয়া, সেটাও চ্যাম্পিয়নরাই পারেন!

আজ ব্যাট হাতে যখন নামছেন, গ্যালারিতে উঠল দুয়োর রোল। বল টেস্পারিংয়ের দায়ে শাস্তি হওয়ার জের অবশ্যই। কয়েক ঘন্টা পর সেই দুয়োই বদলে গেল তালিতে। সেঞ্চুরি ছুঁয়ে যখন ব্যাট উঁচিয়ে ধরলেন, দাঁড়িয়ে তখন গোটা অ্যাডিলেড ওভালের গ্যালারি।

নেমেছিলেন চাপের এভারেস্ট নিয়ে। বল টেস্পারিংয়ে দোষী হওয়া, আপিল করা, তাকে ঘিরে সংবাদকর্মীর সঙ্গে নিরাপত্তারক্ষীর হাতাহাতি, গোটা দল তার পাশে দাঁড়ানো, ক্রিকেট বিশ্বজড়ে আলোচনা-সমালোচনা। তার ওপর ব্যাটিংয়েও নামতে হলো দ্রুত। প্রথম ঘন্টাতেই নেই ৩ উইকেট। মিচেল স্টার্ক ও জস হেইজেলউডের হাত থেকে বেরিয়ে গোলাপি বল ছোবল দিচ্ছিল সাপের মত।

সেখান থেকেই দলকে টেনেছেন প্রায় একা। দুয়োর জবাব অসাধারণ সেঞ্চুরিতে। শেষ নয় ওখানেই। খানিকপর মন জয় করে নিলেন অভাবনীয় এক ইনিংস ঘোষণায়।

রাতের আলোয় শেষ কয়েক ওভারে অস্ট্রেলিয়ান টপ অর্ডারের পরীক্ষা নিতে চেয়েছিলেন হয়ত। আরেকটি ব্যাপারও ছিল। কাঁধের চোট নিয়ে তখন মাঠের বাইরে ডেভিড ওয়ার্নার। মানে তখনই ব্যাটিংয়ে নামতে পারবেন না। নড়বড়ে টপ অর্ডারকে ধসিয়ে দেওয়ার সুযোগ! শেষ পর্যন্ত সেটি হয়নি। তবে ভাবনাটি ছিল অসাধারণ। সাহসী।

হয়ত দল সিরিজ জিতে যাওয়ায় সিদ্ধান্তটি নেওয়া সহজ হয়েছে। তার পরও...!

দিন শেষে জস হেইজেলউড বলেছেন, আচমকা ইনিংস ঘোষণায় তারা চকচকিয়ে গিয়েছিলেন, ওয়ার্নারকে ছাড়া শেষ কয়েক ওভার নিয়ে দুর্ভাবনাও ছিল তাদের!

শুধু আজকেই নয়, গোটা সিরিজে যেভাবে নেতত্ব দিয়েছেন মাঠের ভেতরে বাইরে, নিজের ব্যাটিং, দল পরিচালনা সব কিছু এতটা দুর্দান্ত ছিল, আমার মনে হয় ফাফকে পাকাপাকি ভাবেই দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক করে দেওয়া উচিত। এবি ডি ভিলিয়ার্স ফিরলে শুধু ব্যাটসম্যান হয়েই খেলুক!

 

স্ট্যাট ফ্রিকদের জন্য:

* ৭৬ ওভারে ইনিংস ঘোষণা করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। প্রথম দিনে এর চেয়ে কম ওভারে প্রথম ইনিংস ঘোষণার নজীর আছে আর একটিই। ১৯৭৪ সালে লর্ডস টেস্টে ৪৪.৫ ওভারে ৯ উইকেটে ১৩০ রানে ইনিংস ঘোষণা করেছিল পাকিস্তান। উদ্দেশ্য ছিল বৃষ্টিভেজা উইকেটের ফায়দা নেওয়া। যদিও সফল হয়নি তারা। ইংল্যান্ড শেষ পর্যন্ত জিতেছিল ৮ উইকেটে।

* সব মিলিয়ে ৭৬ ওভারের কমে প্রথম ইনিংস ঘোষণার ঘটনা ছিল আগে আর মাত্র ৫টি। তবে সবকটিতেই ছিল বৃষ্টির ভূমিকা।

* বৃষ্টির ভূমিকা ছাড়া সবচেয়ে কম ওভারে প্রথম ইনিংস ঘোষণার রেকর্ড আজকের ইনিংসটিই। এর আগে ২০১৩ সালে হায়দরাবাদে ভারতের বিপক্ষে ৮৫ ওভারে ৯ উইকেটে ২৩৭ রানে ইনিংস ঘোষণা করেছিলেন মাইকেল ক্লার্ক।

Category : ফিচার
Share this post