সেমিফাইনাল বৃষ্টিতে পণ্ড হলে কী হবে?

খেলাধুলা ডেস্ক
জুন ১৪, ২০১৭
সেমিফাইনালে ক্রিকেটীয় আমেজে কিছুটা ভাটা পড়তে পারে। সেমিফাইনালে ক্রিকেটীয় আমেজে কিছুটা ভাটা পড়তে পারে।

আজ বুধবার থেকে শুরু হচ্ছে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির শেষ চারের লড়াই। সেমিফাইনালের লাইন আপ কিছুটা বিস্ময়জাগানিয়াই বটে। স্বাগতিক ইংল্যান্ড ও ভারতের সেমিফাইনালে ওঠা অনুমিতই ছিল।

তবে, বাংলাদেশ আর পাকিস্তান যে তাদের সাথে এক কাতারে সামিল হবে, এবং পিছনে ফেলবে অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা ও নিউজিল্যান্ডের মত দলকে, সেটা অনেকের ধারণারও বাইরে ছিল।

কিন্তু, শেষ পর্যন্ত সেটাই হয়েছে। আর এখানেই তো ক্রিকেটের সার্থকতা। গৌরবময় অনিশ্চয়তার খেলা হিসেবে পরিচিত ক্রিকেট তার চিরাচরিত বৈশিষ্ট্য অক্ষুণ্ন রেখে এ খেলার সৌন্দর্যকেও সঠিকভাবে তুলে ধরতে পেরেছে অভিমত ক্রিকেটপ্রেমীদের। কিন্তু সেমিফাইনালে এসে সেই সৌন্দর্যে কিছুটা ভাটা পড়তে পারে।

ভারত ও ইংল্যান্ড ফেবারিট দল। পুরো ম্যাচ খেলে যদি তারা জয় তুলে নেয় এবং যোগ্য দল হিসেবে ফাইনালে ওঠে, তা নিয়ে আপত্তি থাকবে না কারোই। কিন্তু সমস্যা করতে পারে বৃষ্টি।

ইংল্যান্ডের বেরসিক বৃষ্টি এসে গ্রুপ পর্বেরও বেশ কিছু ম্যাচে বাগড়া দিয়েছে। দু'টি ম্যাচ তো এমনকি পরিত্যক্তও হয়েছে। অংশগ্রহণকারী দলগুলোকে সেই দুই ম্যাচে পয়েন্ট ভাগাভাগি করেই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে। কিন্তু নক আউট রাউন্ডের খেলায় তো আর পরিত্যক্ত ম্যাচে পয়েন্ট ভাগাভাগি চলতে পারে না। কে উঠবে ফাইনালে, তা নির্ধারণ করতে গেলে একটি পরিষ্কার বিজয়ী দলই থাকতে হবে।

এবং সাধারণত এ ধরণেড় বড় টুর্নামেন্টে বৃষ্টি যেন কোন প্রভাবক হিসেবে আবির্ভূত হতে না পারে, সেজন্য নক আউট রাউন্ডের ম্যাচগুলোর জন্য রিজার্ভ ডে নির্ধারিত থাকে। কিন্তু দুঃখের বিষয়, সেরকম কিছু নেই এবারের চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সেমিফাইনালের ম্যাচগুলোর জন্য। কিন্তু তারপরও কোন এক উপায়ে তো ফাইনালিস্ট বের করতেই হবে। এবং সেটি যেভাবে হবে, তা মোটেই ক্রিকেটীয় সৌন্দর্যের সাথে খাপ খায় না।

আইসিসির নীতিমালা বলছে, বৃষ্টির কারণে যদি কোন সেমিফাইনাল ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়, তবে ওই ম্যাচে অংশ নেয়া দুই দলের মধ্যে যে দলটি গ্রুপ পর্বে ভালো বেশি ভালো করেছে, তারাই যাবে ফাইনালে। তার মানে সমীকরণটা দিনের আলোর মত পরিষ্কার।

যেহেতু ইংল্যান্ড গ্রুপ এ'র চ্যাম্পিয়ন, তাই প্রথম সেমিফাইনালে ইংল্যান্ড-পাকিস্তান ম্যাচে বৃষ্টির কারণে ম্যাচ পরিত্যক্ত হলে বিনা লড়াইয়ে ফাইনালের টিকিট পাবে ইংল্যান্ড। আর দ্বিতীয় ম্যাচে অর্থাৎ ভারত-বাংলাদেশ লড়াই যদি পরিত্যক্ত হয়, সেহেতু বি গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হিসেবে সেমিফাইনালে ওঠায় সে সুযোগ জুটবে ভারতের কপালেই।

তার মানে দাঁড়াচ্ছে, যেহেতু গ্রুপ পর্বে চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি, তাই সেমিফাইনাল মাঠে গড়ানোর আগেই কিছুটা পিছিয়ে থাকছে বাংলাদেশ ও পাকিস্তান। ম্যাচ যদি হয়, তাহলে প্রতিপক্ষকে হারিয়েই ফাইনালে উঠতে হবে তাদের।

আর ম্যাচ যদি বৃষ্টির কারণে ভেসে যায়, তাহলে কোনপ্রকার লড়াইয়ের সুযোগ না পেয়েই বিনাযুদ্ধে হার মেনে বিদায় নিতে হবে প্রতিযোগিতা থেকে। এবং শেষ পর্যন্ত এমন কিছু যদি হয় বাংলাদেশ বা পাকিস্তানের সাথে, নিজ নিজ দেশের সমর্থকেরা যে তা কিছুতেই মেনে নিতে পারবে না সে কথা বলাই বাহুল্য।

এখন ফিরে দেখা যাক গ্রুপ পর্বের ম্যাচগুলোয় কি হয়েছিল। ইংল্যান্ড-পাকিস্তান ম্যাচের ভেন্যু কার্ডিফে গ্রুপ পর্বের ম্যাচগুলোয় আবহাওয়া খুব একটা বাগড়া দেয়নি। প্রতিটি ম্যাচই নির্বিঘ্নেই সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু বিপরীত চিত্র দেখা গেছে বার্মিংহামের এজবাস্টনে, যেখানে বাংলাদেশের মুখোমুখি হওয়ার কথা ভারতের।

পুরো গ্রুপ পর্ব জুড়ে বৃষ্টির কারণে বিঘ্নিত হয়েছে এই ভেন্যুতে হওয়া ম্যাচগুলো। এবং আবহাওয়া পূর্বাভাস বলছে, আগামী কয়েকদিনও বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে এ ভেন্যুতে। তাই বাংলাদেশকে বৃষ্টির কথা মাথায় রেখেই মাঠে নামতে হবে। এবং কোন কারণে যদি বৃষ্টির কারণে ম্যাচ পণ্ড হয়ে যায়, তাহলে আরও একবার আইসিসি ইভেন্ট থেকে দুর্ভাগ্যজনক বিদায় হবে তাদের।

Category : ফিচার
Share on your Facebook
Share this post