ভারত-ইংল্যান্ড সিরিজের পাঁচ শিক্ষা

রিমন ইসলাম
ডিসেম্বর ২২, ২০১৬
 ভারতীয় ক্রিকেট দল ৪-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতে নিল। ভারতীয় ক্রিকেট দল ৪-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতে নিল।

চেন্নাইয়ে পঞ্চম ও শেষ টেস্টে ইংল্যান্ডকে নাস্তানাবুদ করার মাধ্যমে বিরাট কোহলির নেতৃত্বাধীন ভারতীয় ক্রিকেট দল ৪-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতে নিল। রবীন্দ্র জাদেজার ৭ উইকেটের সুবাদে টেস্টের শেষ দিনে ইংল্যান্ড ইনিংস ও ৭৫ রানের বিশাল ব্যবধানে পরাজিত হয়।

এই জয়ের ফলে ভারত টানা ১৮ টেস্ট ম্যাচ অপরাজিত রইলো। সিরিজের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক বিরাট কোহলি ম্যান অফ দ্যা সিরিজ নির্বাচিত হন। রাজকোটে প্রথম টেস্টে প্রতিরোধ গড়ে তুললেও বাকি চার ম্যাচেই শোচনীয়ভাবে পরাজয় বরণ করেছে কুকবাহিনী।

‘কিং কোহলি’র একক রাজত্ব

২০১৬ সালে অধিনায়ক হিসেবে টানা পাঁচটি সিরিজ জয় ও তিনটি ডাবল সেঞ্চুরির মাধ্যমে নিজেকে নতুন উচ্চতায় নিয়ে গেছেন এই ২৮ বছর বয়সী ক্রিকেটার। ‘কিং কোহলি’ উপাধিতে ভুষিত কোহলি মুম্বাইয়ে চতুর্থ টেস্টে ডাবল সেঞ্চুরির মাধ্যমে চলতি বছরে ১০০০ রান ছাড়িয়ে যান এবং ক্যারিয়ারে ৪০০০ রানের মাইলফলক স্পর্শ করেন। চেন্নাইয়ে পঞ্চম টেস্টে ১৬৭ রানের ইনিংসের সাহায্যে সিরিজের সর্বোচ্চ ৬৫৫ রান করেন তিনি।

ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের রানবন্যা

শুধু বিরাট কোহলিই নন, এই সিরিজে সব ব্যাটসম্যানরাই প্রয়োজনের মুহূর্তে গুরুত্বপূর্ণ কিছু ইনিংস খেলেছেন। শেষ টেস্টে করুন নায়ার খেলেছেন অপরাজিত ৩০৩ রানের চোখধাঁধানো একটি ইনিংস, অন্যদিকে লোকেশ রাহুল মাত্র এক রানের জন্য দ্বিশতক বঞ্চিত হয়েছেন। সাতে ব্যাট করতে নামা রবিচন্দ্রন অশ্বিন ৪৩.৭১ গড়ে রান করেছেন। রাবিন্দ্রা জাদেজা মোহালিতে করেছেন ৯০ রান এবং মুম্বাইয়ে জয়ন্ত যাদব করেছিলেন দ্রুতগতির ১০৪ রান। মুরালি বিজয়, চেতস্বর পুজারাও ফর্মেই ছিলেন।

পতনের দ্বারপ্রান্তে কুক-সাম্রাজ্য

প্রথম টেস্টের পূর্বেই পরিবার ছেড়ে লম্বা সময় থাকাকে কঠিন উল্লেখ করে ইংল্যান্ডের অধিনায়ক হিসেবে নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে সংশয়ের কথা জানিয়েছিলেন অ্যালিস্টেয়ার কুক। রাজকোটে ড্র হওয়া টেস্টে ১৩০ রানের ইনিংসের পর পুরো সিরিজে নিজেকে সেভাবে মেলে ধরতে ব্যর্থ হন তিনি। মুম্বাই টেস্টে ভারতের সিরিজ জয় নিশ্চিত হওয়ার পর থেকেই সহ-অধিনায়ক জো রুটকে টেস্ট দলের অধিনায়কত্ব হস্তান্তের জন্য কুকের ওপর চাপ বাড়ছিল। চেন্নাই টেস্টে শোচনীয় ব্যাটিং ধ্বসে পরাজয়ের পর হয়ত শিগগিরই কুক দায়িত্ব থেকে সড়ে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্তটা নিয়েই ফেলবেন।

ইংল্যান্ডের আশার আলো

হতাশাজনক এই সফরেও টপ অর্ডারে দুই তরুন তুর্কি হাসিব হামিদ ও কিটন জেনিংসের উথান ছিল ইংল্যান্ডের বড় প্রাপ্তি। হাসিব অভিষেক টেস্টে দুই ইনিংসে যথাক্রমে ৩১ ও ৮২ রান করেন। অন্যদিকে ২৪ বছর বয়সী জেনিংস অভিষেক টেস্টের প্রথম ইনিংসেই করেন ১১২ রান। কুক এবং হামিদ ওপেন করলে জেনিংসকে ব্যাট করতে হবে তিনে। সেক্ষেত্রে রুট নিজের পছন্দের চার নাম্বার পজিশনে ব্যাট করার সুযোগ পাবেন যা ইংল্যান্ডের ব্যাটিং গভীরতাও বৃদ্ধি করবে। মইন আলীকে নেমে যেতে হবে লোয়ার অর্ডারে।

প্রশ্নবিদ্ধ ডিআরএস

ভারতের মাটিতে অনুষ্ঠিত কোন টেস্ট সিরিজে এবারই প্রথমবারের মত ডিসিশন রিভিউ সিস্টেম (ডিআরএস) পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়। ভারত এই সিরিজে বল ব্যাটে কিংবা গ্লাভসে স্পর্শ এর শব্দ অনুসন্ধানে অডিও টুল এবং বল ট্র্যাকিং টেকনোলোজির সাহায্য নিয়েছে। বিশ্বের অন্যান্য টেস্ট প্লেয়িং দেশগুলোতে 'হট স্পট' টেকনোলোজির সাহায্য নেয়া হলেও যৌক্তিক কিছু কারণে ভারতে তা ব্যবহার করা হয়নি। তাই কোহলি টেকনোলোজির ব্যবহারকে সমর্থন জানালেও বিশেষজ্ঞদের মতে বিশ্বব্যাপী এর একটি সুনির্দিষ্ট নিয়মের প্রয়োগ অত্যাবশকীয়।

- এনডিটিভি অবলম্বনে

Category : ফিচার
Share on your Facebook
Share this post