সত্যিকারের ভক্তরা পন্টিংকে কখনো ভুলবে না

  ১৯৭৪ সালের এদিনেই জন্মেছিলেন তিনি।  ১৯৭৪ সালের এদিনেই জন্মেছিলেন তিনি।

তার সময়টা ছিল অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটের স্বর্ণযুগ।

ক্রিকেট বিশ্বে তখন রীতিমতো তাণ্ডব চালাতো ক্যাঙ্গারুরা। বিশ্বের যে কোন প্রান্তে গিয়েই রাজত্ব করতো অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটাররা। রিকি থমাস পন্টিং সেই রাজত্বের সম্রাট ছিনে।

ক্রিকেটের খুব কমই রেকর্ডই আছে যা তিনি ছুঁয়ে দেখেননি। নিজের সময় ছিলেন সেরাদের সেরা, আর অবসরের পর তিনি তরুণ ক্রিকেটারদের অনুপ্রেরণা।

১৯৯৫ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তার আবির্ভাব হয়, যার শেষটা করেন ২০১২ সালে। আর মাঝের এই ১৭ বছরে ২২ গজে রাজত্ব করেছেন। আভিজাত্যের ফরমেট টেস্টে ১৬৮ টি ম্যাচ খেলেছেন, যেখানে রান করেছেন ১৩ হাজারেরও বেশি। মোট সেঞ্চুরি ৪১ টি, আর হাফ সেঞ্চুরি ৬২ টি।

আর ওয়ানডেতে করেছেন সাড়ে ১৩ হাজারেরও বেশি রান করেন। এর মাঝে সেঞ্চুরির পার করেন ৩০ বার আর হাফ সেঞ্চুরি করেন ৮২ বার। ক্যারিয়ারে মোট ৬৯ বার অপরাজিত থাকেন। এর মধ্যে ওয়ানডেতে ৩৯ বার আর টেস্টে ৩০ বার। আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে মোট ৫৬০ ম্যাচে ২৭১২২ রান করেন এই কিংবদন্তি।

পন্টিংই একমাত্র ক্রিকেটার যিনি তিনটি ক্রিকেট বিশ্বকাপ জিতেছেন।  এর মধ্যে দু’টি আসে পন্টিংয়েরই অধিনায়কত্বে। সত্যিই বড় অর্জন।

২০০৯ সালেই তিনি টি-টোয়েন্টি খেলা ছেড়ে দেন। ২০১২ সালে এসে বিদায় বলে দেন টেস্ট আর ওয়ানডেকে। আর ২০১৩ সালে তিনি প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটকেও বিদায় বলেন।

অস্ট্রেলিয়া তাসমানিয়ায় জন্ম নেওয়া এই মহান ক্রিকেটার আজকের দিনেই এ ধরায় আবির্ভূত হয়েছিলেন। ১৯৭৪ সালের এদিনেই জন্মেছিলেন তিনি। আজ, সোমবার ক্রিকেটের এই মহা নায়ক পা রাখলেন ৪২ বছর বয়সে। শুভ জন্মদিন পান্টার।

ক্রিকেটের সত্যিকারের সমর্থকরা আপনাকে কখনো ভুলবে না!

Category : ফিচার
Share this post