শ্রীলঙ্কা-পাকিস্তানও হতে পারে সেমির প্রতিপক্ষ

খেলাধুলা ডেস্ক
জুন ১২, ২০১৭
 গাণিতিক হিসাব-নিকাশে দেখা যাচ্ছে, শ্রীলঙ্কার চেয়েও পাকিস্তানের পক্ষে কাজটা ঢের সহজ! গাণিতিক হিসাব-নিকাশে দেখা যাচ্ছে, শ্রীলঙ্কার চেয়েও পাকিস্তানের পক্ষে কাজটা ঢের সহজ!

কে হবে ফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ? টুর্নামেন্টের ফরম্যাট অনুযায়ী, সেমিফাইনালে এক গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন খেলবে অন্য গ্রুপের রানার্স-আপের সঙ্গে। যেহেতু বাংলাদেশ গ্রুপ এ'র রানার্স-আপ, তাই তারা খেলবে গ্রুপ বি’র চ্যাম্পিয়ন দলের বিপক্ষে।

গতকাল রবিবার ভারত দক্ষিণ আফ্রিকাকে বড় ব্যবধানে হারিয়ে তাদের নেট রান রেট আরও স্বাস্থ্যকর করে তুলেছে। অনেকের মতে শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তানের ধরাছোঁয়ার বাইরে নিয়ে গেছে। তাই বলা হচ্ছে, শ্রীলঙ্কা-পাকিস্তান ম্যাচে যে দলই জিতুক, তাতে বি গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন কারা হবে তা নিয়ে মোটেই সংশয় সৃষ্টি হবে না। ভারতই হবে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন, আর আগামী ১৫ জুন ফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ হবে তারাই।

কিন্তু গাণিতিক হিসাবে কিন্তু এখনো শ্রীলঙ্কা-পাকিস্তান দুই দলের সামনেই সমান সুযোগ আছে আজকের ম্যাচ জিতে ভারতকে টপকে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে যাওয়ার। কিভাবে? আসুন সেটাই একবার দেখে নিই।

এই মুহূর্তে ভারতের সাথে শ্রীলংকা ও পাকিস্তানের পয়েন্টের ব্যবধান এতটাই বেশি যে আজকের ম্যাচে কোন দল যদি প্রতিপক্ষকে ০ রানেও অলআউট করে দেয়, এবং তারপর কোন বল মোকাবেলা না করে স্রেফ অতিরিক্ত থেকে ১ রান পেয়ে ম্যাচ জিতে নেয়, তাহলেও কোন লাভ হবে না।

তবে শ্রীলঙ্কা যদি আজকের ম্যাচে অন্তত ২৯৪ রান করে আর তারপর পাকিস্তানকে অল আউট করে দেয় ০ রানে, তাহলে তারা টপকে যাবে ভারতের নেট রান রেট। এদিক থেকে পাকিস্তান অবশ্য কিছুটা সুবিধা পাবে। নেট রান রেটে হয়ত তারা কিছুটা পিছিয়ে রয়েছে শ্রীলঙ্কার চেয়ে, কিন্তু ভুলে গেলে চলবে না তাদের গত ম্যাচটি বৃষ্টিবিঘ্নিত ছিল। পুরো ১০০ ওভারের খেলা হয়নি। তাই তারা যদি আগে ব্যাট করে ২৬৭ রান করে, এবং তারপর শ্রীলঙ্কাকে ০ রানে অল আউট করে দেয়, তাহলে তাদের নেট রান রেট ভারতের চেয়ে বেশি হয়ে যাবে।

তবে কোন দলকে ০ রানে করা যে অসম্ভব তা তো বলার অপেক্ষা রাখে না। তাই চলুন দেখে নিই আর কোন রাস্তা খোলা আছে দুই দলের সামনে।

শুরু করা যাক শ্রীলঙ্কাকে দিয়ে। তারা যদি আগে ব্যাট করে, তাহলে ৩০০ রান করে পাকিস্তানকে অল আউট করতে হবে ৭ রানের মধ্যে। তারা যদি ৩২৫ রান করে, তাহলে পাকিস্তানকে অল আউট করতে হবে ৩৬ রানের মধ্যে। তারা যদি ৩৫০ রান করে, পাকিস্তানকে অল আউট করতে হবে ৬২ রানের মধ্যে। তারা যদি ৩৭৫ রান করে, পাকিস্তানকে অল আউট করতে হবে ৮৯ রানের মধ্যে।

তারা যদি ৪০০ রান করে, তাহলে পাকিস্তানকে অল আউট করতে বা বেঁধে রাখতে হবে ১১৬ রানের মধ্যে। তারা যদি ৪২৫ রান করে, তাহলে পাকিস্তানকে অল আউট করতে বা বেঁধে রাখতে হবে ১৪৩ রানের মধ্যে। আর তারা যদি ৪৫০ রান করে, তাহলে তাহলে পাকিস্তানকে অল আউট করতে বা বেঁধে রাখতে হবে ১৭১ রানের মধ্যে।

সুতরাং দেখা যাচ্ছে, শুরুতে কাজটা যতটা অসম্ভব মনে হচ্ছিল ঠিক ততটাও অসম্ভব নয়। ৪০০ রানের কাছাকাছি করে প্রতিপক্ষকে ১০০ রানের নিচে আটকে ফেলার নজির ক্রিকেট ইতিহাসে আরও আছে। সেই কাজটাই যদি আজ শ্রীলঙ্কা করতে পারে, তাহলেই তাদের পক্ষে সম্ভব বি গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হওয়া।

এবার আসুন পাকিস্তানের জন্য শর্তগুলো দেখে নিই। পাকিস্তান যদি ২৯০ রান করে, তাহলে শ্রীলংকাকে অল আউট করতে হবে ৩০ রানের মধ্যে। তারা যদি ৩১৫ রান করে, তাহলে শ্রীলংকাকে অল আউট করতে হবে ৬২ রানের মধ্যে। তারা যদি ৩৩৫ রান করে, তাহলে শ্রীলংকাকে অল আউট করতে হবে ৮৮ রানের মধ্যে। তারা যদি ৩৬০ রান করে, তাহলে শ্রীলংকাকে অল আউট করতে বা বেঁধে ফেলতে হবে ১২০ রানের মধ্যে।

তারা যদি ৩৮৫ রান করে, তাহলে শ্রীলংকাকে অল আউট করতে বা বেঁধে ফেলতে হবে ১৫২ রানের মধ্যে। তারা যদি ৪১০ রান করে, তাহলে শ্রীলংকাকে অল আউট করতে বা বেঁধে ফেলতে হবে ১৮৪ রানের মধ্যে। তারা যদি ৪৩৫ রান করে, তাহলে শ্রীলংকাকে অল আউট করতে বা বেঁধে ফেলতে হবে ২১৬ রানের মধ্যে।

অর্থাৎ গাণিতিক হিসাব-নিকাশে দেখা যাচ্ছে, শ্রীলঙ্কার চেয়েও পাকিস্তানের পক্ষে কাজটা ঢের সহজ!

Category : খবর
Share on your Facebook
Share this post